ক্ষণজন্মা প্রতিভাধর বিজ্ঞানী মার্কনী

0
5

মার্কনী ছিলেন একজন অসামান্য প্রতিভাধর বিজ্ঞানী।তিনি যেখানেই যেতেন, পাপারাজ্জিরা তার পেছনে পেছনে যেত ক্যামেরা হাতে। তার কিছু তথ্য নিয়েই আজকের এই আয়োজন

মার্কনী ছিলেন জন্মসূত্রে আধা ইতালীয়ান এবং আধা আইরিশ।

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা মার্কনীর তেমন একটা ভালো ছিল না। স্কুলে তিনি ভালো ফলাফল করতে পারতেন না। ফলে তার জন্য গৃহশিক্ষকের ব্যবস্থা করা হয়। ভিনসেঞ্জো রোসা নামক একজন হাইস্কুল শিক্ষক তার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ দীক্ষাগুরু ছিলেন।

মার্কনীর দুজন স্ত্রী ছিল।

টাইটানিক যখন ডুবে যায় তখন প্রায় ৭০৫ জন ক্রু মেম্বার ও যাত্রী তাদের প্রাণ বাঁচাতে সমর্থ হয়। এরাও বাঁচতে পারতেন না যদি জাহাজে ‘মার্কনী ট্রান্সমিটার” না থাকত। মার্কনীর এই আবিষ্কৃত ট্রান্সমিটারের সাহায্যেই বার্তা পাঠিয়ে কার্পেথিয়ান জাহাজকে খবর পাঠানো হয়।

জনতার সম্মুখে মার্কনী প্রথম সে যন্ত্র দিয়ে কথা বলেন, যাকে আজ আমরা সেলফোন বলে থাকি।

পৃথিবীর প্রথম আন্তর্জাতিক শর্টওয়েভ ব্রডকাস্ট স্টেশন তিনি স্থাপন করেন। এর নাম ভ্যাটিকান রেডিও।

মুসোলিনির গ্র্যান্ড কাউন্সিল অব ফ্যাসিজমের সদস্য ছিলেন মার্কনী।

কিন্তু মুসোলিনির সাথে হিটলারের বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক তিনি ভালো চোখে দেখেন নি।

মার্কনী মারা যাবার পর পৃথিবীর সকল রেডিও স্টেশন তার প্রতি সম্মান জানিয়ে এক ঘন্টা কোন সম্প্রচার করে নি।

Content Protection by DMCA.com