বোধশক্তিহীন রোগীকে এবার সাহায্য করবে কম্পিউটার-মস্তিষ্ক

0
2

একটি কম্পিউটার-ব্রেন বানানো হয়েছে। এর মাধ্যমে যে রোগীরা কথা বলতে পারেন না ও নড়াচড়া করতে পারেন না, তারা মনের ভাষা প্রকাশ করতে পারবেন। প্রতি মিনিটে দুটো শব্দের জানান দিতে পারবেন তারা। এমনটাই দাবি করেছেন নেদারল্যান্ডসের এক দল বিজ্ঞানী।

প্রক্রিয়াটি প্রয়োগ করা হয়েছে ৫৮ বছর বয়সী এক নারীর ওপর। তিনি অ্যামাইয়োট্রোপিক ল্যাটারাল স্ক্লেরোসিসের আক্রান্ত। তিনি তার পেশিগুলোকে নাড়াতে পারেন না। কথাও বলতে অক্ষম। ওই কম্পিউটার মস্তিস্কের মাধ্যমে তিনি অনুভব করে যে ডান হাত নাড়িয় কথা বলছেন। আর আগে কেবল চোখের ভঙ্গী ও পাতা ফেলার মাধ্যমেই ভাষা প্রকাশ করতেন তিনি।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রফেসর বিকাশ গিলজা জানান, এই সিস্টেমের মাধ্যমে রোগীকে দারুণ কোনো অবস্থায় নিয়ে যাচ্ছে না। কিন্তু এটা দিয়ে বেশ ভালো কাজ হচ্ছে। অন্তত একে আরো আগে নিয়ে যাওয়ার শুরু হতে পারে এর মাধ্যমে।

গবেষণায় বলা হয়, মস্তিষ্কের সংকেত শনাক্ত করা খুব কঠিন বিষয়। কারণ মস্তিষ্কে অসংখ্য সংকেত সৃষ্টি হয়। নতুন পদ্ধতিতে চারটি সেন্সর স্ট্রিপ বসানো হয় মস্তিষ্কের বাম মোটর কর্টেক্সে।

খুলিতে ড্রিলের মাধ্যমে চারটি ফুটো করে এই সার্জারি সম্পন্ন হয়। চারটি স্ট্রিপের প্রত্যেকটিতে রয়েছে চারটি ইলেকট্রোড। সেখান থেকে যে সংযোগগুলো এসেছে তা স্থাপন করা হয়েছে ওই নারীর বুকে। এ পদ্ধতি পরিচালিত হয় কম্পিউটারের মাধ্যমে। সার্জারি করতে সময় লেগেছে ৮ ঘণ্টা। টানা ২৮ সপ্তাহ ধরে তার ওপর গবেষণা চলে। এ পদ্ধতি ব্যবহার করে ওই নারী ভিডিও স্ক্রিনের কোনো অংশ স্পর্শের চেষ্টা করেন চিন্তার মাধ্যমে ডান হাতটি নাড়িয়ে।

 

তবে পদ্ধতিটিতে ঝুঁকি রয়েছে। কারণ এটা বসাতে সার্জারির প্রয়োজন পড়ে। হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে এবং সার্জারির পর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। সার্জারির পর জ্বর আসতে পারে যা চিকিৎসা ছাড়াই দ্রুত চলে যায়। ত্বকে অসাড় ভাব অনুভূত হতে পারে। ক্লান্তিভাবও আসতে পারে যা থেরাপি ছাড়াই চলে যায়।

গিলজা বলেন, যন্ত্রটি এখনো গবেষণার মধ্যেই রয়েছে। এতে দেওয়া যেতে পারে ১০০ ইলেকট্রোড এবং একটি ৪ বর্গ মিলিমিটারের প্যাচ। মস্তিস্কের উপরিতলে না থেকে এগুলো মস্তিষ্কের টিস্যুতে দেওয়া যেতে পারে।

Content Protection by DMCA.com