মশা কিংবা যে-কোন পোকামাকড়ের কামড়ে আর চুলকোতে হবেনা শরীর

0
12

বিজ্ঞানের এই যুগে প্রযুক্তির নানা আবিস্কার আর ব্যবহার এখন প্রাত্যাহিক জীবনের অনুষঙ্গ। জীবনের নানা ক্ষেত্রে নানা গেজেট নানা ডিভাইস আমাদের জীবনযাত্রাকে করেছে সহজ। আবার সমালোচকদের ভাষায় এমন প্রযুক্তির ব্যবহার অবশ্য জীবনকে আলসেও বানিয়েছে! হয়তোবা সমালোচকদের কথাই মিললো এবার ! ভাবুনতো একবার সেই চিরাচরিত শরীরের চুলকোনির কথা!

বাঙালি এবং মশা এই দু’জনের সখ্যতা বহুদিনের পুরনো। মশা মারতে কামান দাগতেও রাজি হয় অনেকে। মশার উৎপাত থেকে বাঁচতে কত ধরনের উপায় যে বের হয়েছে তা বলে শেষ করা যাবে না। এসব দুঃখের কথা আর নাইবা বললাম। এই মশাকে তো আটকানো যাবে না। কিন্তু এখন এই মশা বা অনান্য কোনও পোকা মাকড়ের কামড়ে শরীরে চুলকানি চাইলে আটকানো যাবে।

এতকাল শরীরের নানান জায়গায় চুলকোনির জন্য কত সমস্যা । কাজের ফাঁকে শরীরের নানা জায়গায় চুলকোতে গিয়ে কতনা বিপত্তিতে পড়তে হয় আমাদের। কিন্তু ব্যস্ত জীবনে চুলকোনোর সময় বা কখন ? এবার তাই বাজারে এলো চুলকোনি উপশমের এক দারুন গেজেট ।

মশার কামড়ের সব থেকে বিরক্তিকর বিষয় চুলকানি। এই চুলকানি ঠেকানোর কোনো উপায় এতোদিন ছিল না। এবার সেই সমস্যারও সমাধান করে ফেলল বিজ্ঞানীরা। নতুন এক প্রযুক্তি নিয়ে হাজির হয়েছে তারা। এক বাটন সম্বলিত লম্বাটে আকৃতির বাইট হেলপার। মশার কামড়ে ফুলে ওঠা লাল পিণ্ডর আকার ও চুলকানি কমিয়ে আনার কাজ করবে এটি। তবে ডিভাইসটি শুধু মশার কামড় নয় শরীরের অন্যান্য জায়গার ব্যাথা সারানোর কাজেও ব্যবহার করা যাবে।

মশা বা বিষাক্ত কোনও পোকা মাকড় কামড়ে শরীরের লাল হয়ে যাওয়া অংশে বাইট হেলপার নামে এই ডিভাইসটি চেপে ধরলেই হলো। নিমেষে গায়েব সব ধরণের সমস্যা। বাইট হেলপারে আছে থার্মো পালস টেকনোলজি।

এই ডিভাইসটির সাহায্যে মশা কামড়ানো স্থানটিতে কম্পনের সঙ্গে ১২০ ডিগ্রি গরম তাপমাত্রা প্রবাহিত হবে। উপকার পেতে ডিভাইসটি আক্রান্ত স্থানে ৩০ থেকে ৪০ সেকেন্ড পর্যন্ত ধরে রাখতে হয়।

তবে এটি ব্যবহার করে অনেকেই জানিয়েছেন, বাইট হেলপারের গরমটা তাদের কাছে অসহনীয় মনে হয়েছে। ব্যাটারি চালিত বহনযোগ্য এই ডিভাইসটির দাম ধরা হয়েছে ৩৯ ডলার।

Content Protection by DMCA.com

LEAVE A REPLY